শুক্রবার | ২২শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দৈনিক পাবলিক বাংলা বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র
বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র

চাঁপাইনবাবগঞ্জের খামারিরা দুশ্চিন্তায় কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে

ফেরদৌস সিহানুক শান্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের খামারিরা দুশ্চিন্তায় কোরবানির পশু বিক্রি নিয়ে

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সহ সারা দেশে করোনা ভাইরাস মহামারির তান্ডবে দেশের মানুষ গৃহ বন্দি। আগামী ২১শে জুলাই পবিত্র ঈদুল আযাহ। ঈদকে সামনে রেখে চাঁপাইনবাবগঞ্জের খামারিরা গরুসহ অনান্য পশুর সেবা যত্নে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে আসন্ন ঈদ মৌসুমে গরুর বাজার দর নিয়ে সংকায় রয়েছেন তারা। ঈদের আগ পর্যন্ত বিভিন্ন উপজেলায় দ্রুত ২/৩টি পশুর হাট বসানোর দাবি করেছেন তারা। গরু ব্যবসায়ী এনামুল হোসেন এনাম জানান, চলতি বছর পর্যাপ্ত গবাদি পশু রয়েছে এবং ভারত থেকে যাতে কোন ভাবেই গরু না আসে, এজন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।
জানা গেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ৫টি উপজেলায় ১০টি গরুর হাটসহ কয়েকটি ছাগলের হাট রয়েছে। তবে সব চাইতে বড় গরুর হাট তত্তীপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জের বটতলা হাট, রামচন্দ্রপুরহাট, নাচোলের সোনাইচন্ডীহাট, রহনপুর ও ভোলাহাট পশুর হাট এবং সব চাইতে বড় ছাগলের হাট রাণীহাটি। কমলাকান্তপুরের খামারি আব্দুস সামাদ জানান, আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে হাটে দাম ভাল পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন তারা, কেননা সারা দেশ জুড়ে চলছে কঠোর লকডাউন ঈদের আর মাত্র ২ সপ্তাহ বাকি।
এছাড়া গরুর হাট চালুর পাশাপাশি বিকল্প উদ্যোগ নেয়ার দাবি ডেইরি ফার্ম অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দের। আর খামারিদের প্রয়োজনে অনলাইনসহ ছোট পরিসরে হলেও, হাট চালুর আশ্বাস জেলা প্রশাসনের। জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেলায় এবারের ঈদুল আযহায় কোরবানী পশুর চাহিদা রয়েছে ১ লাখ ৩ হাজার কোরবানির পশুর চাহিদা। এর বিপরীতে জেলার ৫ উপজেলায় ছোট বড় ও পরিবারিকভাবে মিলিয়ে ১৩ হাজার ১’শ ৬২টি খামারে ১ লাখ ৬৩ হাজার ১’শ ৮৬টি গবাদিপশু প্রস্তুত করা হয়েছে। গোমস্তাপুরের কাজিগ্রামের খামারি সবেদ আলী জানান, ৭ বছর ধরে ঈদকে সামনে রেখে প্রতিবছরই গরু মোটাতাজা করা হয় থাকে । করোনায় গত বছর মোটা অংকের লোকসানের পর, ঘুরে দাঁড়াতে এ বছরও তার খামারে পালন করা হয়েছে অর্ধশতাধিকেরও বেশি গরু। বিনোয়োগ করা হয়েছে বড় অংকের টাকা। লাভ তো দূরের কথা ব্যাপারী সংকটে এবারও গরু বিক্রি করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। একই অবস্থা জেলার ছোট-বড় সব খামারিদের। তারা আরও বলছেন, গত ২ বছর ধরেই তারা লোকসান গুনছেন। এবারও লোকসান হলে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন না। এ অবস্থায় লকডাউনে হাট চালু না হলে ব্যাপক লোকসানের আশংঙ্কায় রয়েছেন তারা। এদিকে জেলা ডেইরি ফার্ম অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুনজের আলম মানিক জানান, করোনার মহামারিতে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত বিদেশি জাতের পালন করা বড় গরুর খামারিরা। জেলার বাইরে ঢাকা, চট্রগ্রাম ও সিলেটের বাজারে এসব গরু নিয়ে যেতে না পারলে, স্থানীয় বাজারে নায্য দাম পাওয়া নিয়েও সংশয়ে রয়েছেন। এ অবস্থায় এসব বড় গরুর সঠিক মূল্য পেতে সরকারি সহায়তা চান খামারিরা। আর খামারিদের বাঁচাতে হাট চালুর পাশাপাশি গরু বিক্রি ও পরিবহনে দ্রুতই উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানানো হয়। রাণীহাটি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, গরুর হাট চালু করা হলে স্বাস্থ্য বিধি মানার জন্য প্রশাসনের সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিতে মনিটরিং করতে হবে। শিবগঞ্জ উপজেলার তত্তীপুর হাট ইজারাদার জানান, করোনা ভাইরাসের কারনে মানুষ আর্থিক ভাবে চাপের মুখে রয়েছে। কাজেই অন্য বছরের তুলনায় এবার গরু কোরবানির হার কম হবে। অন্যদিকে বৃহত্তম আম বাজার কানসাটের আড়ৎদার আল মামুন জানান, চলতি বছর বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না থাকায় আমের ফলন ভালো হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার ২লক্ষাধিক মানুষ বিভিন্ন ভাবে আম ব্যবসার সাথে জড়িত। করোনাকলিন সময়ে জেলা প্রশাসন সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করে মাঠে কাজ করায়
মানুষ হাসি মুখে আম ব্যবসা চালিয়ে লাভবান হচ্ছে। কাজেই গত বছরের মতোই এবারও সাধারন মানুষ কোরবানির পশু ক্রয় করে আসন্ন ঈদুল আযহা পালন করবেন।
জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, চলতি বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জে পর্যাপ্ত কোরবানির পশু রয়েছে এবং ভারতীয় গরুর কোন প্রয়োজন নাই। তিনি আরও বলেন অনলাইনসহ ছোট পরিসরে হাট চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে নিরাপদ প্রাণিজ আমিষ নিশ্চিতে কৃত্রিম উপায়ে কেউ যাতে গরু মোটাতাজাকরণ করতে না পারে তা নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে ।
জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, করোনাকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় দরিদ্র মানুষকে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী যে ভাবে আর্থিক সহায়তা করছেন তাতে তারা খুশি। এছাড়া মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবার গুলো গরু ও খাসি বাড়িতেই লালন পারন করেন। কাজেই আসন্ন ঈদুল আযহায় কোন সমস্যা হবে না। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন অচিরেই পশুর হাট বসানো হবে, তবে তা অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে করতে হবে।

আপনার মতামত দিন

Posted ২:০২ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১০ জুলাই ২০২১

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
ড. সৈয়দ রনো   উপদেষ্টা সম্পাদক   
শাহ্ বোরহান মেহেদী, সম্পাদক ও প্রকাশক
,
ঢাক অফিস :

২২, ইন্দারা রোড (তৃতীয় তলা), ফার্মগেট, তেজগাও, ঢাকা-১২১৫।

নরসিংদী অফিস : পাইকসা মেহেদী ভিলা, ঘোড়াশাল, নরসিংদী। ফোনঃ +8801865610720

ই-মেইল: news@doinikpublicbangla.com