মঙ্গলবার | ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দৈনিক পাবলিক বাংলা বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র
বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র

এক সময়ের মোটরসাইকেল চোর সিনটিগেটের সদস্য যখন ইউপি চেয়ারম্যান!

এক সময়ের মোটরসাইকেল  চোর সিনটিগেটের সদস্য যখন ইউপি চেয়ারম্যান!

এক সময়ের মোটর সাইকেল চোর সিনটিগেটের সদস্য বর্তমানে তুলারামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। তিনি মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে জনরোষানলে পড়ার বিস্তার অভিযোগ রয়েছে। ঘটনাটি ঘটে সদর উপজেলার জোড়া পাম্পের নিকট ২০১৬ সালে। পিতার সম্মান বিবেচনা করে তখন মুশলেকা দিয়ে পার পান বুলবুল। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় তার চরিত্রের বিন্দু মাত্র পরিবর্তন আজও লক্ষ করা যায় নি।
তিনি চুরাইকৃত একাধিক মোটর সাইকেল তুলারামপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন লোকের কাছে বিক্রি করেছেন। সম্প্রতি সময়ে ডিবি পুলিশের অভিযানে তুলারামপুর চামরুল গ্রাম ও তুলারামপুর দক্ষিণ পাড়া থেকে চুরাইকৃত দুইটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। চুরাই মোটরসাইকেল ব্যবহার করা ও বাড়িতে থাকায় চামরুল গ্রামের মান্নান বিশ্বাসের ছেলে লিটন বিশ্বাস ও দক্ষিণ তুলারামপুর গ্রামের জাফর মোল্যার ছেলে মামুন মোল্যাকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ।
এলাকাবাসীর দাবি এরকম অভিযান হলে ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসবে আরো অনেক চুরাইকৃত মোরটযান। স্থানীয়রা আরো বলেন,

চেয়ারম্যান হয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন তিনি। তুলারামপুর ইউনিয়ন পরিষদকে দূর্নীতির আতপ ঘরে পরিনত করেছেন । তার অন্যায় অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে সম্প্রতি মানুষ মুখ খুলতে শুরু করেছে। তথ্যঅনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে অনিয়ম, দূর্নীতি, সেচ্ছাচারিতা ও প্রতারনার নানাবিধ সচিত্র। সরকারি গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগে অনেক দুর দৌড়াদৌড়ি করতে হয়েছে তার। চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে বেকার যুবকদের নিকট হতে কৌশলে অর্থ নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে । ডিপ টিউবওয়েল দেওয়ার কথা বলে ও নগদ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন কিন্তু আজও টিউবওয়েল দেওয়া হয়নি। শুধু তাই নয়, জায়গা আছে ঘর নাই’ প্রকল্পে ব্যাপক অনিয়ম রয়েছে । সরকারি এ প্রকল্পে বিনামূল্যে ঘর দেওয়ার কথা থাকলেও উপকার ভোগীদের নিকট হতে ২৫ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে।

সরকারি এ প্রকল্পে বিনামূল্যে হতদরিদ্রদের এসব ঘর দেওয়ার কথা রযেছে। এই প্রকল্পে অনুমোদিত ঘরের তালিকা উপজেলা পর্যায়ে আসার পর ইউপি চেয়ারম্যানরা সংশ্লিষ্ট উপজেলা থেকে নিজ নিজ ইউনিয়নের তালিকা সংগ্রহ করে কপি দিয়েছে চেয়ারম্যান। এই সুযোগে চেয়ারম্যান বাড়িতে গিয়ে তাদেরকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঘর পাওয়ার সংবাদ দিয়ে ঘর পেতে হলে ২০ থেকে ২৫ হাজার করে টাকা দেওয়ার কথা বলছেন। আর টাকা না দিলে ঘর পাওয়া যাবে না বলে আসছেন।উপকারভোগীরা তাদের কথা বিশ্বাস করে সুদ করে বা ধারদেনা করে ঘর বাতিল হওয়ার ভয়ে টাকা দিচ্ছেন। এই ভাবেই উপকারভোগীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান। এমনকি এ টাকা নেওয়ায় কোনো লুকোছাপাও নেই। তবে ঘর বরাদ্দ বাতিল হওয়ার ভয়ে দরিদ্র এসব মানুষ মুখ খুলতে চান না।তবে টাকা দেওয়ার কথা অনেকেই স্বীকার করেছেন। উপকারভোগীরা জানান, চেয়ারম্যান
তাদের কাছে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা করে দাবি করেন। এ টাকা দিতে না পারলে ঘর দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন। পরে তারা ধারদেনা ও ঋণ নিয়ে তাদেরকে টাকা দেন।
তুলারামপুর ইউনিয়নের উপকারভোগী আজিজুর মোল্যার স্ত্রী তহমিনা খাতুন বলেন, কুড়ে ঘরে থাকতাম। ২৫ হাজার টাকা ব্রাক হতে কিস্তিতে লোন নিয়ে টাকা তুলে চেয়ারম্যানকে দিয়েছি। তারপর ঘর পেয়েছি। ঘরের কাজ ও ভাল ভাবে করিনি।
পেড়লী গ্রামের নাজমুল জানান, ডিপ টিউবওয়েল দেওয়ার কথা বলে আমার নিকট হতে ৭ হাজার টাকা নিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান । টিউবওয়েল দেয়নি। টাকা ফেরত চাইলে আজ কাল করে ঘুরাচ্ছেন।
একই গ্রামের জয়নাল বলেন, টিউবওয়েল দেওয়ার কথা বলে ৩ মাস আগে টাকা নিয়েছেন চেয়ারম্যান এখন টিউবওয়েল দেয়নি । টাকা ও দিচ্ছে না। মোসফেক মিস্ত্রির নিকট হতে ও এরক ভাবে হাতিয়ে নিয়েছেন নগদ অর্থ । শুধু তাই নয় তুলারামপুর পেড়লী চাচড়া সহ বিভিন্ন গ্রাম থেকে টিউবওয়েল দেওয়ার কথা বলে টাকা নেওয়া হয়েছে। এ দিকে চাকুরী দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে দক্ষিণ তুলারামপুর গ্রামের নোয়াব আলী নিকট হতে নেওয়া হয়েছে মোটা অংকের টাকা । নোয়াব আলী ছেলে সোহান সর্দারকে এ্যপলো হাসপাতালে চাকরি দেবার কথা বলে এ টাকা নেওয়া হয়েছে বলে ভিডিও সাক্ষাৎকারে জানান সোহানের বাবা নোয়াব আলী।
এ বিষয়ে তুলারামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বলেন, কারো নিকট হতে টাকা নেওয়া হয়নি।
এ ছাড়া ও বিগত নির্বাচনের সময় কে এম হাবিবুর রহমানের কাছ থেকে আট লক্ষ্য টাকা টাকা ধার নেন তারই পিতা আব্দুর রাজ্জাক মোল্লার সাক্ষরিত স্ট্যাম্পে যা আজ অবধি পরিশোধ করেনি, টাকা চাইলে বলে যে নিয়েছে সে পরিশোধ করবে।
মটোরাইকেল চুরির বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জানান,আমি মোটরসাইকেল বিষয় কিছু জানি না। সদর থানার ওসি জানান, ডিবি পুলিশ দুইটি চোরাই মোটরসাইকেল জব্দ করেছেন। কারা কারা এর সাথে জড়িত সেই বিষয়ে খোজ খবর নেওয়া হচ্ছে।

আপনার মতামত দিন

Posted ৪:৩১ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৮ জুন ২০২১

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
ড. সৈয়দ রনো   উপদেষ্টা সম্পাদক   
শাহ্ বোরহান মেহেদী, সম্পাদক ও প্রকাশক
,
ঢাক অফিস :

২২, ইন্দারা রোড (তৃতীয় তলা), ফার্মগেট, তেজগাও, ঢাকা-১২১৫।

নরসিংদী অফিস : পাইকসা মেহেদী ভিলা, ঘোড়াশাল, নরসিংদী। ফোনঃ +8801865610720

ই-মেইল: news@doinikpublicbangla.com