বুধবার | ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দৈনিক পাবলিক বাংলা বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র
বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র

তামাকের প্রভাবে চরম খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা

মাসুদ রানা জয়,পার্বত্যচট্রগ্রাম ব্যুরো :

তামাকের প্রভাবে চরম খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা

খাগড়াছড়ির বিভিন্ন  এলাকার কিছু কিছু জায়গাসহ অত্র অঞ্চলের বিস্তীর্ণ ফসলি জমিতে এ বছর পরিবেশ বিনষ্টকারী ও স্বাস্থের জন্য মারাত্বক ক্ষতিকর নিকোটিন বিষবৃক্ষ বলে খ্যাত তামাক গাছের চাষ করা হয়েছে গত বছরের তুলনায় অনেক বেশী।
কয়েক শ একর ফসলী জমিতে ধান ও শস্য চাষের বদলে চাষিরা উৎপাদন করছে পরিবেশ বিধ্বংসী ক্ষতিকর তামাক। অত্যান্ত কৃষিজ সম্ভাবনাময় পার্বত্যাঞ্চলের জনপদে তামাক কোম্পানী গুলোর আগ্রাসী অপতৎপরতায় কৃষিজদ্রব্য উৎপাদন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে পৌছানো এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।
কৃষি পণ্য উপাদনে সচেতন এমন কতক ব্যক্তির সাথে আলাপ কালে জানা য়ায়, বিষবৃক্ষ খ্যাত তামাক গাছের উৎপাদনের লাগাম যদি টেনে ধরা না হয়, তাহলে খুব শীঘ্রই পার্বত্যাঞ্চলে মিষ্টি আলু, গোল আলূ, কাচা মরিচ, মিষ্টি কুমড়া, তরমুজ, টমেটো, বেগুন, ধান সহ সব ধরণের শস্য উপাদন পঞ্চাশ শতাংশের বেশী কম উৎপাদিত হতে পারে। ভবিষ্যতে হয়তো বাদ্য হয়ে সমতল এলাকার উৎপাদিত পণের উপর নির্ভরতা বাড়াতে হতে পারে। বিষ বৃক্ষ তামাকের প্রভাবে বর্তমানে পার্বত্যাঞ্চলের উপজেলা কৃষি বিভাগের নেয়া কৃষি বান্ধব উদ্যেগ আশানুরোপ সফল হচ্ছে না।
কৃষি প্রশাসনে অনেক মেধাবী কর্মকর্তা রয়েছে উল্যেখ করে কৃষি সচেতন মহলের অনেকে মনে করেন, কৃষি বিভাগের হিসেব অনুযায়ী খাগড়াছড়ির  মাত্র কয়েকশত একর জমিতে তামাক চাষ হয়েছে জানানো হলেও বাস্তবে দেখা গেছে তামাক চাষের পরিমাণ গতবছরের তুলনায় এবছর আরো বেড়ে হাজার একর ছূঁয়েছে।
এলাকাবাসী সুত্রে অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয়ভাবে বিষবৃষ তামাক চাষ তদারকির দায়িত্বে নিয়োজিত ট্যোবাকো কোম্পানীগুলোর লোভনীয় ফাঁদে পা দিয়ে স্থানীয় নতুন নতুন কৃষকরা প্রতিবছর তামাক চাষে ঝুঁকে পড়ছেন। এ অবস্থার ফলে এই অঞ্চলে কমছে প্রতি বছর খাদ্য উৎপাদনশীল আবাদি জমির পরিমাণ। ফলে, তুলনামুলক হারে এলাকায় রবি শষ্যের ফলন উৎপাদন প্রতিবছরই  কমছে, যার কারণে শাখ সবজির মুল্যবৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিনিয়ত। জেলার গ্রামাঞ্চলে হরেক রকমের টোব্যাকো কোম্পানীর তামাক চাষ চলতি মৌসুমে আগাম অর্থ প্রদানের নামে দাদন খাটিয়ে স্থানীয় চাষিদের নানা লোভ-লালসা দিয়ে ক্ষতিকারক তামাক চাষের বিস্তার ঘটাচ্ছে বলে সচেতন মহল সুত্রে জানা যায়।
বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে জেলার সকল উপজেলার ফসলি জমিতে ধান, মরিচ, বেগুন সহ মৌসুমি শাক-সবজি চাষের পরিবর্তে পরিবেশের ক্ষতিকারক তামাক চাষ হচ্ছে কোন প্রকার নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে। তামাক চাষের জন্য কোন  নির্ধারিত ভূমি নেই। ফলে এই তামাক চাষের ক্ষতিকর ঘ্রানের ফলে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে এবং চাষাবাদকৃত তামাকের পাশ্ববর্তী চাষীদের অজানা না রোগ ব্যাধি সৃষ্টি হওয়ার আশংকা প্রকাশও করছেন অনেকে।
স্থানীয় সমাজ সেবক ও জনপ্রতিনিধি সূত্রে জানা গেছে, আমাদের পার্শ্ববর্তী এলাকা জুড়ে তামাক চাষ করছে দীর্ঘ দিন ধরে চাষিরা। যে ফসলী জমি গুলোতে পূর্বে ধান, মরিচ, বেগুন সহ নানা শাকসবজি উৎপাদন করা হত, তামাক চাষের কারনে বর্তমানে সে সব মনোরম  দৃশ্য আর চোখে পড়ে না। তামাক চাষের প্রভাবে আবাদি জমির পরিমান কমতে থাকায় এখন চরম হুমকির মুখে পড়েছে কৃষি খাদ্য নিরাপত্তা। প্রতিবছর এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে খাদ্য উদ্বৃত্ত এ উপজেলায় একসময় চরম খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা দেখা দেবে।
এ অবস্থার উন্নতির লক্ষ্যে তামাক চাষ বন্ধ ও কৃষি ভূমি রক্ষায় বর্তমান কৃষি বান্ধব সরকারকে এখনই কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানান। পাশাপাশী তামাকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলনে সম্পৃক্ততা বাড়াতে ও খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করা এনজিও সংস্থা গুলোকে আরও বেশী সময় উপযোগী পরিকল্পনা গ্রহনের আহবান।
অন্যদিকে  কাচাঁ তামাককে প্রক্রিয়াজাত করণে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হয় পরিবেশ রক্ষার অন্যতম উপাদান অপরিপক্ক গাছের কাঠ। জেলায় তামাক প্রক্রিয়াজাত করণে জ্বালানী হিসেবে যে পরিমাণ কাঠ ব্যবহার হয় তা দিয়ে প্রায় ৪ লক্ষ পরিবার এক বছর রান্নার কাজ চালাতে পারে বলে ধারণা করেন এলাকাবাসী। ক্ষতিকারক তামাকের কারণে উজাড় হচ্ছে সরকারী বনাঞ্চল ও ব্যক্তি মালিকানাধীন বাগানের মুল্যবান বৃক্ষরাজি। আর আবাদি জমির পরিমাণ কমে যাওয়ায় এখন হুমকির মুখে পড়েছে কৃষি খাদ্য নিরাপত্তা। মাসুদ রানা জয়,পার্বত্যচট্রগ্রাম ব্যুরো : ২৭/০৬/২০২১ ০১৫৫৪২২৫৬০০

আপনার মতামত দিন

Posted ৪:০০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৭ জুন ২০২১

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
ড. সৈয়দ রনো   উপদেষ্টা সম্পাদক   
শাহ্ বোরহান মেহেদী, সম্পাদক ও প্রকাশক
,
ঢাক অফিস :

২২, ইন্দারা রোড (তৃতীয় তলা), ফার্মগেট, তেজগাও, ঢাকা-১২১৫।

নরসিংদী অফিস : পাইকসা মেহেদী ভিলা, ঘোড়াশাল, নরসিংদী। ফোনঃ +8801865610720

ই-মেইল: news@doinikpublicbangla.com