মঙ্গলবার | ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দৈনিক পাবলিক বাংলা বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র
বিশ্বজুড়ে বাঙলার মুখপত্র

বড়লেখায় টিলা ও গাছ কাটার অভিযোগ

মোঃ জাকির হোসেন, মৌলবীবাজার থেকে :

বড়লেখায় টিলা ও গাছ কাটার অভিযোগ

মোঃ জাকির হোসেন (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার পশ্চিম হাতলিয়া গ্রামে সরকারী বরাদ্দে ব্যক্তি মালিকানাধীন টিলা কেটে জোরপূর্বক রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার (২০ জুন) ভুক্তভোগী জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ি গ্রামের মৃত তজমুল আলীর পুত্র আব্দুল খালিক ৪ ব্যক্তির বিরুদ্ধে বড়লেখা ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

জোরপূর্বক ব্যক্তি মালিকানাধীন টিলা কেটে মাত্র এক পরিবারের জন্য আড়াই লাখ টাকার সরকারী বরাদ্দ প্রদানে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

লিখিত অভিযোগ ও সরেজমিনে জানা গেছে, পশ্চিম হাতলিয়া গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে আব্দুল খালিক, আব্দুল মুকিত তুলাই, আব্দুল বাছিত ও আব্দুর রাজ্জাক তাদের বসতবাড়িতে যাতায়াতের রাস্তা থাকা স্বত্বেও তাদের বাড়ির সম্মুখের জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ি গ্রামের আব্দুল খালিকের মালিকানাধীন টিলায় প্রায় শতাধিক গাছ ও ভূমি কেটে রাস্তা নির্মাণের পায়তারা করেন। তারা দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যানকে প্রভাবিত করে অতিগোপনে এখানে রাস্তা তৈরীর একটি সরকারী প্রকল্প গ্রহণ করায়।

সম্প্রতি ইজিপিপি প্রকল্পের আড়াই লাখ টাকা বরাদ্দ পেয়ে আব্দুল খালিক, আব্দুল মুকিত তুলাই গংরা জোরপূর্বক টিলা কেটে রাস্তা নির্মাণ শুরু করে। খবর পেয়ে ভুমি মালিক আব্দুল খালিক তাদেরকে বাধা দেন।

ভুক্তভোগী আব্দুল খালিক জানান, কোনো ধরণের যোগাযোগ ছাড়াই তারা সরকারী প্রকল্পের মাধ্যমে আমার টিলা কেটে রাস্তা নির্মাণ শুরু করে। তাদের যাতায়াতের রাস্তা রয়েছে। এদিকে তাদের একটি পরিবার ছাড়া আর কোনো পরিবার নেই। মাত্র একটি পরিবারের জন্য সরকারের এত বড় প্রকল্প দেয়া রহস্যজনক !

তিনি বলেন, এটি জনস্বার্থে নয়, আমার বিরাট ক্ষতির জন্য অসৎ উদ্দেশ্যে করা হচ্ছে। টিলা কাটার সময় আমার অসংখ্য গাছ কেটে লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন করা হয়েছে। আমি আপত্তি দিয়ে বন্ধ রেখেছি। আমার অগোচরে পুনরায় রাস্তা করে ফেলার আশংকা করছি।

এ ব্যাপারে বড়লেখা উপজেলা পি আই ও মোঃ ওবায়দুল্লা খান বলেন, ভুক্তভোগীর লিখিত অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে এ ধরণের কোন প্রকল্পের কাজের অনুমতি দেয়া হয়নি। অতি শীগ্রই সরজমিনে পরিদর্শন করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মতামত দিন

Posted ৯:৩৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২১ জুন ২০২১

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

ড. সৈয়দ রনো   উপদেষ্টা সম্পাদক   
শাহ্ বোরহান মেহেদী, সম্পাদক ও প্রকাশক
,
ঢাক অফিস :

২২, ইন্দারা রোড (তৃতীয় তলা), ফার্মগেট, তেজগাও, ঢাকা-১২১৫।

নরসিংদী অফিস : পাইকসা মেহেদী ভিলা, ঘোড়াশাল, নরসিংদী। ফোনঃ +8801865610720

ই-মেইল: news@doinikpublicbangla.com